হাসাড়া ইউনিয়নকে ডিজিটাল ইউনিয়নে রুপান্তরিত করতে চান সোলায়মান হোসেন

জাতীয় দেশজুড়ে রাজনীতি
মোঃ আনোয়ার হোসেনঃ মানব সেবা পরম ধর্ম এই উদ্দেশ্যকে সামনে রেখে যারা মানব সেবা করেন তারাই প্রকৃত মানুষ। একজন মানুষ প্রকৃত জনসেবার মধ্য দিয়েই আল্লাহর সন্তুষ্টি অর্জন করতে পারেন। সেই সব মহামানব গনই মানুষের মাঝে চিরস্মরণীয় হয়ে বেঁচে থাকেন। তেমনি একজন পরোপকারী ন্যায়পরায়ন,
সময়ের শ্রেষ্ঠ সাহসী সন্তান, বিশিষ্ট সমাজ সেবক ও শিক্ষা অনুরাগী মোঃ সোলায়মান হোসেন খান। তিনি হাসাড়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান, আলমপুর হাফেজিয়া মাদ্রাসার ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি।
সোলায়মান হোসেন খান এলাকার বিভিন্ন মসজিদ, মাদ্রাসার উন্নয়ন মূলক কর্মকাণ্ডের সাথে জড়িত আছেন।তার পিতা ছিলেন হাসাড়া ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক সুনাম ধন্য চেয়ারম্যান।কথায় আছে বাবকা বেটা সিপাহীকা ঘোড়া। পিতার ন্যায় তিনি মসজিদ,মাদ্রাসায় দিয়ে থাকেন আর্থিক সুবিধা। ব্যাক্তিগত অর্থায়নে করে গেছেন ইউনিয়নের বিভিন্ন রাস্তা ঘাটের উন্নয়ন। এলাকায় সুবিচার প্রতিষ্ঠা করে পুরো ইউনিয়ন বাসীর নিকট হয়েছেন তাদের চোখের মনি। সন্ত্রাস, দূর্নীতি, মাদকের বিরুদ্ধে সোলায়মান হোসেন খান একটি বলিষ্ঠ কন্ঠস্বর।যিনি হাটি হাটি পাঁ পাঁ করে নিজেকে এলাকায় একজন সমাজ সেবক হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করতে সক্ষম হয়েছেন। যিনি ইউনিয়ন বাসির ছোট বড় সকলের প্রিয় মুখ। গরীব দুঃখী সহ সমাজের অসহায় দরিদ্র মানুষের সর্বদা সহায়ক তিনি মোঃ সোলায়মান হোসেন খান। তিনি একজন সুনামধন্য ব্যবসায়ী,বাংলাদেশের ঐতিহ্য বাহী খান সুজ কোম্পানির মালিক। সোলায়মান হোসেন খান বাংলাদেশের কোন রাজনৈতিক দলের সাথে জড়িত না থাকলে ও তিনি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আদর্শকে বুকে লালন করেন এবং ভালবাসেন।তাই তিনি নিন্দা জানিয়েছেন ঐ সকল ঘাতকদের প্রতি যারা নির্মম ভাবে সপরিবারে হত্যা করেছিল জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে।
প্রধানমন্ত্রী  শেখ হাসিনার ৭৫ তম জন্মদিনে সোলায়মান হোসেন খান জানিয়েছেন আন্তরিক শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন। সোলায়মান হোসেন খান সম্পর্কে এলাকা বাসি রূপবানীকে বলেন সোলায়মান চেয়ারম্যান এর আমলে আমাদের ইউনিয়নে রাস্তাঘাট,কালবার্ট সহ বিভিন্ন বিষয় যে পরিমাণ উন্নয়ন হয়েছে তা আর কোন চেয়ারম্যান করেনি।তাছাড়া করোনা কালীন মহা বিপদের সময় সোলায়মান চেয়ারম্যান সরকারি অনুদানের পাশাপাশি নিজের ব্যক্তিগত অর্থের বিনিময়ে গরীব অসহায় মানুষদের সাহায্য সহোযোগিতা করেছেন তা নজিরবিহীন। ইউনিয়ন বাসি আরো জানান সোলায়মান চেয়ারম্যান একজন সহজ সরল ভালো মানুষ, তিনি সৎ ও যোগ্য চেয়ারম্যান। আমরা পূনরায় হাসাড়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান হিসেবে তাকেই পেতে চাই।
এ বিষয় সোলায়মান হোসেন খানের নিকট জানতে চাইলে তিনি বলেন আমি সর্বদা মানুষের পাশে থেকে সেবা করে যেতে চাই। আমার বাবাও তাই করেছিলেন। পূর্বের নির্বাচনে হসাড়া ইউনিয়ন বাসির কাছ থেকে আমি যে ভালবাসা পেয়েছি আমি তাদের কাছে ঋণী, তারা আমাকে ভালবেসে  ভোট দিয়ে চেয়ারম্যান নির্বাচিত করেছিলেন, আমি তাদের ঋণ কোন দিন শোধ করতে পরবো না। তবে এবারের নির্বাচনে জনগন যদি আমাকে তাদের ভোটের মাধ্যমে চেয়ারম্যান হিসাবে নির্বচিত করেন তাহলে আমি কথা দিচ্ছি ইউনিয়ন বাসির পাশে থেকে তাদের সেবা করে যাবো। পাশাপাশি ইউনিয়নের বাকি অসমাপ্ত কাজগুলো সমাপ্ত করবো ইনশাআল্লাহ।
কালের ছবি/ রাজীব

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *