রুমায় ৩ ইউনিয়নের ইজারা সিন্ডিকেটে ব্যবসায়িসহ জনসাধারণ জিম্মি

অর্থনীতি আইন আদালত জাতীয় দেশজুড়ে রাজনীতি

রুমা থেকে নিজস্ব প্রতিনিধি: বান্দরবানের রুমা উপজেলার ৩ ইউনিয়ন পরিষদের ইজারা ডাক সিন্ডিকেটের কার্যক্রমে ব্যবসায়িক ও জনসাধারণ জিম্মি হয়ে পরছে বলে জানাগেছে।

গত ২৪ আগষ্ট  (মঙ্গলবার) ২০২১- ২২ অর্থ বৎসরের জন্য “গ্যালেঙ্গা” ইউনিয়ন ও রেমাইক্রি ইউনিয়নের ইজারা ও নিলাম দেওয়া হয়েছে। এ নিলামে রুমা বাজার ব্যবসায়িকরা সিন্ডিকেটের মধ্য দিয়ে যা অতীব গোপনীয় মাধ্যমে সিন্ডিকেট গ্রুপ গুলো নিকুজেসন নাম করে দিলিপ দাশ নামে রেমাইক্রি ইউনিয়ন এবং গালেংগ্যা ইউনিয়নের হরিলাল চক্রবর্তী নামে ইউনিয়নের ইজারা ডাক নেওয়া হয়েছে। এতে কৌশল অবলম্বন করে ঐ সব নিলামে অংশ গ্রহণ করেন “হরিলাল চক্রবর্তী,সুধির দাশ, দীলিপ দাশ ও পিপলু মার্মা।

বিশেষ সূত্রে জানা গেছে গত ২০২০-২১ অর্থ বৎসরের গ্যালেঙ্গা ইউনিয়নের ইজারা ছিল ১ লক্ষ ১১ হাজার টাকা মাত্র, কিন্তু ২০২১-২২ অর্থ বৎসরের এসে সিন্ডিকেট করে টেন্ডার করেছেন ৫০ হাজার ৫ শত টাকা । তার মধ্যে ইউনিয়ন পরিষদ কে টাকা জমা দিয়েছেন ৩০ হাজার টাকা মাত্র। সেই সাথেই রেমাইক্রি ইউনিয়নে ও ২০২০-২১ অর্থ বৎসরের মুল ইজারা ছিল ১ লক্ষ ২১ হাজার টাকা মাত্র, এই ২০২১-২২ অর্থ বৎসরে সিন্ডিকেট গ্রুপ নিলামে ডেকে নিয়েছিল ১ লক্ষ ১ হাজার টাকা নিলামে করা হয়েছে এতেই রেমাইক্রি ইউনিয়ন পরিষদের জমা দেওয়া হয়েছে ৫০ হাজার টাকা মাত্র।

গত ২৯ আগষ্ট ২ নং রুমা সদর ইউনিয়নের নিলামের দিন ধার্য্য করা হয়েছে ২০২১-২২ অর্থ বৎসরের জন্য, তবে বিগত ২০২০ – ২০২১ অর্থ বৎসরে জন্য মুল ইজারা ছিল ১৮ লক্ষ ১০ হাজার টাকা কিন্তু এইবারে ২০২১-২২ অর্থ বৎসরে এসে ১৬ জন সিডিউল কিনা হয়েছে। তার মধ্যে দস্তগীর সওদাগরের সর্বোচ্চ ইজারাদার হিসাবে পরিচিত লাভ করছেন।এসময় রুমা সদর ইউনিয়ন পরিষদের ইজারা ডাক প্রাপ্ত দস্তগীর বলেন আমরা ১৯ জনের শেয়ার করে এই ইজারা ডাক নিয়েছে বলে জানিয়েছে। এতেই রুমা সদর ইউনিয়ন পরিষদের ইজারা মুল্য সবোর্চ্চ ডাক দিয়েছেন ১০ লক্ষ ২৩ হাজার টাকা মাত্র। সেই সূত্রে জানা যায় বর্তমানে ৩ ইউনিয়ন পরিষদের টাকা জমা করেন ৪ নং গালেঙ্গা ইউনিয়নের-৩০ হাজার টাকা,৩ নং রেমাইক্রি ইউনিয়নের ৫০ হাজার টাকা,২নং রুমা সদর ইউনিয়ন পরিষদের ৫ লক্ষ ১১ হাজার ৫০০ টাকা। রুমা উপজেলা ৩ ইউনিয়ন পরিষদের ইজারা ডাক সর্বমোট জমা পেলো ৫ লক্ষ ৯১ হাজার ৫ শত টাকা মাত্র।

এসময় গোপন সূত্রে জানা যায় রুমা উপজেলা বর্তমান এই পাঁচজন কুচক্রীর সিন্ডিকেট কাছে সকল ব্যবসায়িক ও জনসাধারণ এক প্রকার বন্দী ও জিম্মি হয়ে পরছে বলে জানিয়েছে। আগামী ইউপি নির্বাচনকে কেন্দ্র করে,সুধির দাস সহ সিন্ডিকেটগন চার ইউনিয়নের চেয়ারম্যান প্রার্থী গনকে ভোট না দেওয়া ও দলীয় প্রতিক পেয়ে না দেওয়া সহ বিভিন্ন ভাবে লোভ প্রলোভন দেখিয়ে ইজারা উম্মুক্ত না দিয়ে গোপনীয় ভাবে নিকুজেসন করে আসছে বলে জানা গেছে “সুধির দাস,দস্তগীর সওদাগর, খলিল সওদাগর, হরিলাল চক্রবর্তী ও দিলিপ। এই সব দুর্নীতি সিন্ডিকেট ব্যবসায়ীগন বিভিন্ন ব্যবসায়ী কে ধোঁকা লোভ দেখিয়ে এই ১৯ জনে শেয়ার নিয়েছেন বলে জানান, প্রতি শেয়ারে টাকা আদায় করেছেন ১লক্ষ ৫০ হাজার টাকা করে। সর্বমোট ২৪ লক্ষ টাকা।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক অনেকেই অভিযোগ করে বলেন, দীর্ঘদিন ধরে এই সিন্ডিকেট গ্রুপ রুমা চার ইউনিয়নের ইজারা ডাক গুলো নিয়ে ছিনিমিনি খেলে আসছে বলে জানান। আরো ২০২১-২০২২ অর্থ বছরে ইজারা নিজেদের ভাগের ইজারা ডাক মধ্যে বিন্দুমাত্র পুঁজি না দিয়ে ৮ জন সিন্ডিকেটের মধ্যে ৮৫ হাজার টাকা অধিক লভ্যাংশ হয়েছে ও ১৯ জনের শেয়ার দিয়ে টাকা সংগ্রহ করে ইজারা ডাক সহ ব্যবসায়ের পুঁজি করে নিয়েছে বলে জানা যায় এই সিন্ডিকেট গ্রুপ।

 

কালের ছবি/ রাজীব

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *