সরকারের পায়ের নিচে মাটি নেই : ড: জাফরুল্লাহ

জাতীয় দেশজুড়ে রাজনীতি

এসএম রাজীব: আওয়ামী লীগ সরকারের পায়ের নিচে মাটি নেই বলে মন্তব্য করেছেন গণস্বাস্থ্যের প্রতিষ্ঠাতা ও ট্রাষ্ট্রি ড: জাফরুল্লাহ চৌধুরী। এসময়ে তিনি আরো বলেন, রোহিঙ্গা সংকট সরকার সৃষ্টি করেছে।

শনিবার (৪ সেপ্টেম্বর) দুপুরে জাতীয় প্রেস ক্লাবে এরশাদের জাতীয় পার্টি সরকারের সাবেক প্রধানমন্ত্রী কাজী জাফর আহমেদের ষষ্ঠ মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে জাতীয় পার্টি (জাফর) কতৃক আয়োজিত স্মরণ সভায় বিশেষ অতিথির বক্তব্যে তিনি এ মন্তব্য করেন। অনুষ্ঠানের সভাপতিত্ব করেন সংগঠনের চেয়ারম্যান ও সাবেক মন্ত্রী মোস্তফা জামাল হায়দার।

ড: জাফরুল্লাহ চৌধুরী বলেন, লুই আই কানের (জাতীয় সংসদের স্থপতি) নকশা কি বদলানো যাবে না । সরকার কেন তার এই নকশার অজুহাতে জিয়ার কবর সড়ানোর ষড়যন্ত্রে লিপ্ত হয়েছে। এসময়ে তিনি বলেন, তোফায়েল আহমেদকে কেন ঢাকায় এনে চিকিৎসা দেয়া হলো না । এর কারন হলো সে বেঁচে থাকলে সরকারের সমস্যা্।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, করোনাকালে অসহায়দের জন্যে যে প্রণদনা দেয়ার কথা ছিল তা দেয়া হয়নি । আর যাও দেয়া হয়েছিল তা আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা খেয়ে ফেলেছে। করোনার কারণে শ্রমিকরা নি:স হয়ে যাচ্ছে কিন্তু সরকার কোন প্রদক্ষেপ নিচ্ছে না ।এসময় তিনি আরো বলেন, আওয়ামী লীগ কোন দিনই গণতন্ত্রকে বিশ্বাস করে নাই তাই আজ এই অবস্থা। জাতি আজ অস্বাভাবিক সংকটে পরেছে, তবে আওয়ামী লীগ যতদিন থাকবে তারা আরো বিপদে পরবে।

মির্জা ফখরুল ভারত-বাংলাদেশ সিমান্তে ভারতের সৈণ্যর হাতে বাংলাদেশীদের নিহত হওয়ায় উদ্বেগ প্রকাশ করে বলেন, বিএসএফ বর্ডারে ক্রস ফায়ারে মানুষ মারে কিন্তু সরকার তাদের প্রতি এতো নত হয়ে্ছে যে কোন প্রতিবাদ করে না।এসময়ে তিনি বলেন, আজ আমরা গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠা করতে পারছি না, এর কারন সরকারে এক ভয়াবহ দানব ক্ষমতায় রয়েছ। তরুনদেরকে উদ্ভুদ্ধ করতে হবে গণতন্ত্র বাঁচানোর জন্যে।

বিএনপি মহাসচিব বলেন, এদেশের মানুষ কোন দিন পরাজিত হয়নি আর হবেও না্।তারেক রহমান দূরে থাকলেও দলকে নেতৃত্ব দিতে নিরলস প্ররিশ্রম করে যাচ্ছে। এসময়ে তিনি আরো বলেন, পরীমনিকে হাইকোর্ট রিমান্ড দেয়ায় সুপ্রিম কোর্ট তলব করে। কিন্তু হাইকোর্ট যখন রাজনৈতিক নেতাদের রিমান্ড করে তখন সুপ্রিম কোর্ট কোন কথা বলেন না।

স্মরণ সভায় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত থেকে বক্তব্য রাখেন, জাতীয় পার্টির (জাফর) ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব আহসান হাবিব লিংকন, ২০ দলীয় জোটের শরীক লেবার পার্টির চেয়ারম্যান ড: মোস্তাফিজুর রহমান ইরান, এনডিপির চেয়াম্যান ফরিদ জামান পরাগ, বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক ফজলুল হক মিলন, জাতীয় পার্টির (জাফর) প্রেসিডিয়াম সদস্য নওয়াব আলী আব্বাস খান, এডভোকেট মুজিবুর রহমান প্রমুখ।

এসময়ে বক্তারা, জাতীয় পার্টির (জাফর) প্রতিষ্ঠাতা প্রয়াত প্রধানমন্ত্রী কাজী জাফরের রাজনৈতিক জীবনের ইতিহাসকে স্বরণ করে বলেন, কাজী জাফর সাহেব আমরণ গনতন্ত্রের জন্যে, মানুষের অধিকারের জন্যে আন্দোলন করেছেন। আজ তিনি নেই তবে তার আদর্শ আমাদের কাছে রয়েছে। তাই আমরা তার আদর্শকে ধারন করে ২০ দলের প্রধান সমন্বয়ক বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদ দলের (বিএনপি) নেতৃত্বে গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠার জন্যে এবং সেই সাথে ভোটের অধিকার আদায়ের জন্যে আন্দোলন চালিযে যাবো্।

উল্লেখ্য, কাজী জাফর আহমেদের জন্ম ১৯৩৯ সালে কুমিল্লার চোদ্দ গ্রামে। তিনি সাবেক প্রেসিডেন্ট জেনারেল এরশাদ সরকারে দেশের ৮ম প্রধানমন্ত্রী হিসাবে দায়িত্ব পালন করেন এবং জাপার রাজনীতিতে সক্রিয় ভূমিকা পালন করেন। কিন্তু এরশাদের সাথে রাজনৈতিক মত বিরোধের কারণে এরশাদের জাতীয় পার্টি ভেঙ্গে জাতীয় পার্টির (জাফর) নতুন দল ঘোষনা করে বিএনপির ২০ দলে শরীক হন। তিনি ২০১৫ সালের আগস্টে ঢাকার ইউনাইটেড হাসপাতালে মৃত্যুবরণ করেন।

কালের ছবি/ রাজীব

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *