প্রধানমন্ত্রীর কাছে ঘরের আবেদন প্রতিবন্ধী কবির ও এলাকাবাসীর

জাতীয় দেশজুড়ে

জাকির হুসাইন জিকু, ব্রামনবাড়ীয়া প্রদিনিধি: , ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর উপজেলা ১নং মজলিশপুর ইউনিয়নের মৈন্দ গ্রামের ১নং ওয়ার্ডের রাজবাড়ীর মরহুম রহিছ মিয়ার ছেলে কবির মিয়া, ছোট বেলা বাবা মারা যায়। দুই ভাই এক বোনের মধ্যে কবির সবার বড়, ছোট ভাই এরশাদ মিয়া লান্স ক্যান্সার মানুষের সাহয্য সহযোগিতায় চিকিৎসা চালিয়ে ২৯ আগষ্ট বিকালে মুত্যৃবরন করেন।

এরশাদের মা, স্ত্রী, সন্তান, বড় ভাই কবির,ও এক বোন রয়েছে, কবিরের ছোটবোন তাসলিমাকে সমাজের সার্বিক সহযোগিতায় বিবাহ দেওয়া হয় । বাবা মারা যাবার পর তাদের সংসারেকাজ করার কোন লোকছিল না। বোন বিয়ে দেওয়া ও এরশাদের চিকিৎসা করাহ ধারদেনা করে । পরে দেনা পরিষোধ করতে কবিরের বাবার রেখে যাওয়া দেরশতক জায়গা বিক্রীকরে দেনা পরিষোধ করাহয়। দীর্ঘ কয়েক বছর যাবত আশুদ আলীর বাড়ীতে বসবাস করেন তারা। ‌পরতর্তীতে অন্য এক বাড়ীতে একহাজার টাকা ভাড়ায় থাকেন কবিরের মা ভাই ও পরিবারের লোকজন।

এদিকে কবিরের মা সাংবাদিকদের জানায় আমার সংসারে কোন রোজগারের লোক নাই আমার এক ছেলে কবির প্রতিবন্ধী আরেক ছেলে এরশাদ লান্স ক্যান্সারে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যু বরণ করেছে। আমার ছেলে মেয়ে ছোট রেখে আমার স্বামী মারাযায়, আমার জীবন খুব কষ্টে যায়তাছে। আপনারা আমাদেরকে বাচান।

এলাকাবাসীর পক্ষে মৈন্দ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সাবেক প্রধান শিক্ষক ও ওয়ার্ড আওয়ামীলিগ সভাপতি হাজী আবুল বাসার মাষ্টার বলেন কবির একজন প্রতিবন্ধী তার ছোট ভাই কেন্সারে আক্রান্ত হয়ে মুত্যৃ বরণকরেন। এলাকাবাসী তাদের কে অনেক সহযোগিতা করেছে, মানানীয় প্রধান মন্ত্রীর কাছে আকুল আবেদন, তাদের কে একটা আবাসন প্রকল্পের ঘর দিলে তারা অন্তত পক্ষে ঘড় ভাড়ার চিন্তা থেকে মুক্ত থাকবে।

১নং ওয়ার্ডের সাবেক তিনবারের মেম্বার মোছা মিয়া বলেন কবিরের মা, ভাই, সহ তাদের পরবারটি নিঃস, কবিরের ভাই মুত্যৃবরণ করেছেন, এই পরিবারটি সকল প্রকার সরকারী সুবিধা পাওয়ার যোগ্য আমি সমাজ সেবক ও কতৃপক্ষের কাছে অনুরুধ জানায় তাদেরকে যেন আবাসন প্রকল্প সহ বিভিন্ন প্রকার সরকারী সুবিধা দেওয়া হয়।

এলাকাবাসী কবিরের জন্য, মানানীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার নিকট আবেদন জানান, মানানীয় জেলা প্রশাসকের মাধ্যমে ও সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার মাধ্যমে তাদেরকে যেন আশ্রয়ন প্রকল্পের ঘড় উপহার প্রধান করাহয়।

কালের ছবি/রাজীব

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *