৩০০ কোটি টাকার মামলায় ড. ইউনূসের প্রতিষ্ঠান

অর্থনীতি আইন আদালত জাতীয় দেশজুড়ে

জাতীয় ডেস্কঃ দেশের শ্রমিক কল্যাণের জন্যে পাওনা ৩০০ কোটি টাকার ১০৭টি মামলা থেকে বাঁচতে প্রায় ১৪ কোটি টাকা দিয়ে লবিস্ট ফার্মনিয়োগ দিয়েছেন ড. মুহাম্মদ ইউনূসের প্রতিষ্ঠান গ্রামীণ টেলিকম। ঢাকার শ্রম আদালতে সব মিলে ১০৭টি মামলা করা হয় তাদের বিরুদ্ধে ।

১৪ জুন ২০২১ পরিচালনা পরিষদের এক ভার্চুয়াল সভায় এই মামলাগুলোতে জিতার লক্ষে ঢাকা লজিস্টিক সার্ভিসেস অ্যান্ড সলিউশনের সঙ্গে চুক্তির বিষয় অনুমোদন দেয়া হয়। এই পুরো কর্মকান্ডের জন্য ব্যয় ধরা হয়ছে ১৩ কোটি ৮০ লাখ টাকা। বোর্ড সভায় এই চুক্তির অনুমোদন দিয়েছেন স্বয়ং মুহাম্মদ ইউনূস।

সরকারের শীর্ষস্থানীয় মন্ত্রী আর আমলাদের সমন্বয়ের মাধ্যমে এই মামলা জিতিয়ে দেয়ার চুক্তি সই করেছেন গ্রামীণ কল্যাণ আর ঢাকা লজিস্টিক ফার্ম। এবং তা অনুমোদন করেছেন ড. মুহাম্মদ ইউনূস। কারণ মোবাইল অপারেটিং কোম্পানি গ্রামীণফোনের ৩৪ দশমিক ২০ শতাংশের মালিক অর্থনীতিতে নোবেলজয়ী ড. ইউনূসের গ্রামীণ।

গ্রামীণফোনের কাছ থেকেই প্রতি বছর এই গ্রামীণ টেলিকম ডিভিডেন্ট পায় হাজার কোটি টাকার ওপরে। ২০১৯ সালেই তাদের ডিভিডেন্ট এসেছে এক হাজার ৩০০ কোটি টাকা। কিন্তু এই সব ডিভিডেন্টের পাঁচ শতাংশ শ্রমিক কল্যাণকে দেয়ার কথা থাকলেও তা কোনও দিনই দেয়নি গ্রামীণ টেলিকম। ২০০৬ সাল থেকে শুরু হয়ে যা এখন বেড়ে দাঁড়িয়েছে প্রায় ৩০০ কোটি টাকা। ফলে ক্ষুব্ধ কর্মীরা বকেয়া পাওনা চেয়ে মামলা করেছেন।

এই চুক্তি অনুসারে ঢাকা লজিস্টিক মামলাগুলোর রায় গ্রামীণ টেলিকমের পক্ষে আনতে তিন মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী ও প্রতিমন্ত্রীকে এনগেইজ করার কথা বলা হয়েছে। সঙ্গে সন্তুষ্ট করার কথা বলা হয়েছে মন্ত্রণালয়গুলোর সচিব, কল-কারখানাও প্রতিষ্ঠান পরিদর্শন অধিদফতরের মহাপরিদর্শক, শ্রম অধিদফতরের মহাপরিচালক এবং শ্রমিকনেতাদেরও।

 

কালের ছব্/িরাজীব

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *